Home রাজনীতি
Category:

রাজনীতি

ঢাকা, ২ ডিসেম্বর ২০২২: খেলাফত মজলিসের আমীর অধ্যক্ষ মাওলানা মোহাম্মদ ইসহাক বলেছেন, জিনিসপত্রের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধিসহ দেশে নানমুখী সংকট চলছে। বহু আলেম জেলখানায়। জনগণের জান মালের নিরাপত্তা নেই। এসব সংকট উত্তরণে দ্বীন- ইসলাম প্রতিষ্ঠা করতে হবে। ইসলামই হচ্ছে শান্তির একমাত্র পথ। দ্বীন প্রতিষ্ঠার জন্য হিম্মতের সহিত ময়দানে কাজ করতে হবে। খেলাফত মজলিসের ৩৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে ঢাকা মহানগরী দক্ষিণ আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।
আজ ২ ডিসেম্বর শুক্রবার সকাল ৯টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের আবদুস সালাম হলে ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের সভাপতি অধ্যাপক মাওলানা আজীজুল হকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান আলোচক সংগঠনের মহাসচিব ড. আহমদ আবদুল কাদের বলেন, দেশ আজ গভীর সংকটের মুখোমুখি। আওয়ামীলীগ তত্ত্বাবধায়ক সরকার প্রতিষ্ঠার আন্দোলন করে ক্ষমতায় গিয়ে নিজেরাই তা বাতিল করেছে। এখন জনগণ ভোটের অধিকারটুকুও হারিয়ে ফেলেছে। এমতাবস্থায় জনগণের ভোটাধিকার প্রতিষ্ঠা করতে হলে নির্বাচনকালীন দল নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের ব্যবস্থা করতে হবে। আর খেলাফত মজলিস ৩৩ বছর ধরে মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে কাজ করে যাচ্ছে। খেলাফত রাষ্ট্রব্যবস্থা প্রতিষ্ঠার গুরুত্ব জনগণের কাছে পৌঁছে দিতে নিরলস কাজ করছে এই সংগঠনের নেতা-কর্মীরা।
ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের সাধারণ সম্পাদক তাওহিদুল ইসলাম তুহিনের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন সংগঠনের নায়েবে আমীর মাওলানা আহমদ আলী কাসেমী। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন যুগ্মমহাসচিব ড. মোস্তাফিজুর রহমান ফয়সল, অধ্যাপক মো: আবদুল জলিল, কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট মোঃ মিজানুর রহমান, প্রশিক্ষণ ও প্রকাশনা সম্পাদক অধ্যাপক কাজী মিনহাজুল আলম, ঢাকা মহানগরী দক্ষিণ সহ-সভাপতি মো: জহিরুল ইসলাম, মাওলানা নুরুল হক, জিল্লুর রহমান, শ্রমিক মজলিসের সাধারণ সম্পাদক মোঃ আবুল কালাম, ময়মনসিংহ মহানগরী সভাপতি এডভোকেট রফিকুল ইসলাম প্রমুখ।
অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের নায়েবে আমীর অধ্যাপক আবদুল্লাহ ফরিদ, শ্রমিক মজলিসের সভাপতি হাজী নূর হোসেন, খেলাফত মজলিস ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের সহ-সাধারণ সম্পাদক মোঃ আবুল হোসাইন, হুমায়ুন কবির আজাদ, কাজী আরিফুর রহমান, মুফতি সাইফুল হক, মাওলানা ফারুক আহমদ ভূঁঞা, ছাত্র মজলিসের সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি মাওলানা মুহাম্মদ মনির হোসাইন, মাওলানা সরদার নেয়ামত উল্লাহ, মোঃ গিয়াস উদ্দিন, সেলিম হোসাইন, ইসলামী ছাত্র মজলিস ঢাকা মহানগরী দক্ষিণ সভাপতি নূর মুহাম্মদ প্রমুখ।
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে মাওলানা আহমদ আলী কাসেমী বলেন, সমস্ত অশান্তির মূল কারণ হচ্ছে আল্লাহর বিধান পরিপূর্ণভাবে না মানা। চারত্রবান মানুষের অভাবের কারণে চারিদিকে নানা সংকট। মানুষের চরিত্র সংশোধনের জন্য যে শিক্ষা দরকার আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থায় তা নেই। বরং ইসলাম তথা নীতি নৈতিকতার যেসব বিষয় সিলেবাসে ছিলো তাও বাদ দেয়া হচ্ছে।
আলোচনা সভা শেষে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালী জাতীয় প্রেসক্লাব থেকে শুরু হয়ে পল্টন মোড়, দৈনিক বাংলা মোড় হয়ে বায়তুল মোকাররম উত্তর গেইটে এসে শেষ হয়।
আলোচনা সভা ও র‌্যালীতে হামদ-নাত পরিবশন করেন দাবানল শিল্পীগোষ্ঠীর সদস্যবৃন্দ।
0 comment
0 FacebookTwitterPinterestEmail

ঢাকা: বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, তত্ত্বাবধায়ক সরকার ছাড়া বাংলাদেশের কোনো নির্বাচন হবে না এবং এই তত্ত্বাবধায়ক সরকারের এখন যারা বিরোধিতা করবে তারা গণশত্রু হিসেবে ধিকৃত হবে এবং তাদের চিহ্নিত করা হবে গণশত্রু হিসেবে।

শনিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) বিকেলে সিলেট সরকারি আলিয়া মাদরাসা মাঠে বিএনপির বিভাগীয় গণসমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

দেশব্যাপী বিদ্যুতের নজিরবিহীন লোডশেডিং, জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধি, নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের মূল্য বৃদ্ধি, গণপরিবহনের ভাড়া বৃদ্ধি, পুলিশের গুলিতে দেশব্যাপী বিএনপি নেতাকর্মীদের হত্যার প্রতিবাদ, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি এবং নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে দেশব্যাপী বিভাগীয় গণসমাবেশের অংশ হিসেবে সিলেটে এ গণসমাবেশ করে বিএনপি।

মির্জা ফখরুল বলেন, খালেদা জিয়া সংবিধানে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের যে বিধান সন্নিবেশিত করেছিলেন সেই তত্ত্বাবধায়ক সরকার ছাড়া কোনো নির্বাচন হবে না।

তিনি বলেন, ‘সরকার লম্বা লম্বা কথা বলে। তারা বলে সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচন হবে। কোন সংবিধান? যে সংবিধান কাটাছেঁড়া করেছো। তত্ত্বাবধায়ক সরকার বাতিল করে দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনের ব্যবস্থা করেছো। সে সংবিধান আমরা মানি না।’

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘আমাদের দফা এক, দাবি এক- এ সরকারের পদত্যাগ। শেখ হাসিনার পদত্যাগ। আর এর ফয়সালা হবে রাজপথে। রাজপথেই সরকারকে পরাজিত করে জনগণের সরকার করবো।’

‘অবিলম্বে শেখ হাসিনাকে পদত্যাগ করতে হবে। সংসদ বিলুপ্ত করতে হবে এবং মধ্যবর্তী বা নির্বাচনকালীন সময়ের জন্য কেয়ারটেকার সরকার করতে হবে,’ বলেন তিনি।

তিনি বলেন, বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকারের বিচার হতে জনতার আদালতে এবং এ বিচার হবে ভোট চুরি ও ডাকাতির জন্য।

সিলেট অঞ্চলের বিএনপি নেতা ইলিয়াস আলীর গুমের প্রসঙ্গ উল্লেখ করে মির্জা ফখরুল বলেন, তার দলের শত শত নেতাকর্মী খুন ও গুমের শিকার হয়েছে।

তিনি বলেন, ‘কিন্তু এখন মানুষ জেগে উঠেছে। আর হুমকি দিয়ে লাভ হবে না। দাবি আদায় না করে মানুষ আর ঘরে ফিরে যাবে না। আমাদের লক্ষ্য একটাই- ভোটের অধিকার ফিরিয়ে নেয়া।’

তিনি সব রাজনৈতিক দলকে এ দাবি আদায়ে রাজপথে নেমে আসার আহ্বান জানান এবং বলেন, তারা সবাই মিলেই লড়াইয়ের মাধ্যমে সরকারকে পরাজিত করবেন।

0 comment
0 FacebookTwitterPinterestEmail

ঢাকা: রংপুর সিটি করপোরেশন (রসিক) নির্বাচনের বিস্তারিত তফসিল ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন। সোমবার (৭ নভেম্বর) নির্বাচন কমিশনের সচিব মো. জাহাঙ্গীর আলম এ তফসিল ঘোষণা করেন। কমিশন আগেই জানিয়েছে, আগামী ২৭ ডিসেম্বর রংপুরের ভোট হবে।

ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী  মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ সময় ২৯ নভেম্বর। প্রার্থিতা বাছাই ১ ডিসেম্বর। মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ৮ ডিসেম্বর।

রংপুর সিটি নির্বাচন ইভিএমে অনুষ্ঠিত হবে। ভোটগ্রহণ শুরু হবে সকাল ৮টায় এবং শেষ হবে বিকাল সাড়ে ৪টায়। নির্বাচন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক আব্দুল বাতেন এ নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন।

রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের তফসিলরংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের তফসিল

এদিকে ২৯ ডিসেম্বর ভোটগ্রহণের তারিখ নির্ধারণ করে পাঁচটি পৌর নির্বাচনেরও তফসিল ঘোষণা করেছে ইসি।

পৌরসভাগুলো হচ্ছে রাজশীর বাঘা, দিনাজপুরের বিরল, পঞ্চগড়ের বোদা, ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গা ও নাটোরের বনপাড়া।

তফসিল অনুযায়ী পৌরসভাগুলোর মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ সময়ে ১ ডিসেম্বর,  প্রার্থিতা বাছাই ৩ ডিসেম্বর এবং মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার ১০ ডিসেম্বর।

একই তফসিলে ৪৮টি ইউনিয়ন পরিষদের সাধারণ নির্বাচন এবং ১৮টি ইউনিয়ন পরিষদে বিভিন্ন পদে উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদের ভোট  ব্যালটে গ্রহণ করা হবে।

0 comment
0 FacebookTwitterPinterestEmail

ঢাকা: সিলেট জেলা বিএনপি নেতা আফম কামালকে কুপিয়ে খুন করা হয়েছে। রাত ৯ টার দিকে সিলেট নগরীর আম্বরখানা বড় বাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত আফম কামাল সিলেটের পরিচিত মুখ। তিনি জেলা বিএনপির সাবেক স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ও ল’কলেজের সাবেক জিএস।

পুলিশ জানায়- আফম কামাল রোববার রাত ৯ টার দিকে নগরীর আম্বরখানা বড় বাজার এলাকা দিয়ে প্রাইভেট কার যোগে যাচ্ছিলেন। এ সময় তাকে গাড়ি থেকে নামিয়ে এলোপাতাড়ি কুপায় সন্ত্রাসীরা। হামলায় গুরুতর আহত আফম কামালকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

আম্বরখানা পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মফিজুর রহমান মানবজমিনকে জানিয়েছেন- এ ঘটনার পর পুলিশ অভিযান চালিয়ে হামলাকারী দলের প্রধান ইশতিয়াক আহমদ রাজুকে নগরের চৌকীদেখি এলাকার নিজ বাসার সামন থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। সে এলাকার চিহিৃত সন্ত্রাসী ও ছিনতাইকারী। দু’দিন আগে তার নেতৃত্বে সাংবাদিক দিপু সিদ্দিীকির ভাইয়ের উপর হামলা হয়েছিল।

সিলেট জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এমরান আহমদ চৌধুরী জানিয়েছেন- কি কারণে হামলা হয়েছে আমরা জানি না। লাশ ওসমানীতে নিয়ে আসার পর আমরা এসেছি। তিনি বলেন- এ ঘটনা মেনে নেওয়া যায় না।

আফম কামাল সিলেট বিএনপির পরিচিত মুখ। তার মৃত্যুতে বিএনপি পরিবারে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। তিনি অবিলম্বে হামলাকারীদের গ্রেপ্তার ও শাস্তি দাবি করেন।

0 comment
0 FacebookTwitterPinterestEmail

ঢাকা: জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগে তারেক রহমান ও তার স্ত্রী জোবায়দা রহমানের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছেন আদালত।

মঙ্গলবার ঢাকা মহানগর দায়রা জজ মো: আছাদুজ্জামানের আদালত তাদের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগপত্র আমলে নিয়ে এ আদেশ দেন। সেইসথে এ বিষয়ে পরবর্তী শুনানির জন্য ৫ জানুয়ারি দিন ধার্য করেছেন।

দুর্নীতি দমন দুদকের আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজল এসব তথ্য জানান।

এর আগে চলতি বছরের ২৬ জুন হাইকোর্ট তারেক ও জোবায়দাকে ‘পলাতক’ ঘোষণা করে চার কোটি ৮২ লাখ টাকার দুর্নীতি মামলা ও তার প্রক্রিয়ার বৈধতা নিয়ে করা পৃথক রিট আবেদন খারিজ করে দেন আদালত।

মামলার বিবরণে জানা যায়, ঘোষিত আয়ের বাইরে চার কোটি ৮১ লাখ ৫৩ হাজার ৫৬১ টাকার মালিক হওয়া এবং সম্পদের তথ্য গোপন ও জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগে ২০০৭ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর রাজধানীর কাফরুল থানায় এ মামলা করে দুদক। মামলায় তারেক রহমান, জোবায়দা রহমান ও তার মা অর্থাৎ তারেক রহমানের শাশুড়ি ইকবাল মান্দ বানুকে আসামি করা হয়।

0 comment
0 FacebookTwitterPinterestEmail

ঢাকা: নির্বাচন কমিশনে নিবন্ধন পেতে হরেক নামের রাজনৈতিক দল আবেদন করেছে। চার মাসের আবেদনের সময়সীমার শেষ দিন রবিবার (২৯ অক্টোবর) পর্যন্ত ৮০টি দল ইসিতে আবেদন জমা দিয়েছে। যাবতীয় তথ‌্য যাচাই-বাছাই করে আগামী বছরের জুনের মধ্যে নতুন দলের নিবন্ধন প্রক্রিয়া শেষ করার কথা রয়েছে।

নির্বাচন কমিশনের জনসংযোগ পরিচালক এস এম আসাদুজ্জামান জানান, নির্ধারিত সময়ে ৮০টি দলের আবেদন পাওয়া গেছে। নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের নিবন্ধন যাচাই-বাছাই কমিটি প্রাথমিকভাবে আবেদনগুলো যাচাই-বাছাই করবে। তারপর ইসির বিবেচনার জন্যে তা উপস্থাপন করা হবে।

শর্ত পূরণ করছে কিনা তা পরীক্ষা করতে নিবন্ধনযোগ্য দলগুলোর দলিলাদিও মাঠ পর্যায়ে পাঠানো হবে।

সাম্প্রতিক সময়ে বিভিন্ন কারণে আলোচনায় থাকা গণঅধিকার পরিষদ, নাগরিক ঐক্য, এবি পার্টি, বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট পার্টি নিবন্ধনের জন্য আবেদন করেছে। তেমনই নাকফুল, মুসকিল, ইত্যাদি রাজনৈতিক দলের নামও রয়েছে নিবন্ধনের জন্য জমা দেওয়া আবেদনের তালিকায়।

ইসিতে যেসব দল আবদেন করেছে সেগুলো হলো— নৈতিক সমাজ, বাংলাদশ মুক্তিযোদ্ধা লীগ, বাংলাদেশ ন্যাশনাল রিপাবলিক পার্টি, মুসকিল লীগ, নতুন বাংলা, বঙ্গবন্ধু দুস্থ ও প্রতিবন্ধী উন্নয়ন পরিষদ, বাংলাদেশ গণতান্ত্রিক মুক্তি আন্দোলন (বিজিএমএ), বাংলাদেশ কৃষক শ্রমিক পার্টি (কেএসপি), বাংলাদেশ ইত্যাদি পার্টি, প্রগতিশীল গণতান্ত্রিক জোট (পিডিএ), বাংলাদেশ রিপাবলিকান পার্টি (বিআরপি), বৈরাবরী পার্টি, বাংলাদেশ বিদেশ প্রত্যাগত প্রবাসী ও ননপ্রবাসী কল্যাণ দল, বাংলাদেশ জনমত পার্টি, বাংলাদেশ জাস্টিস অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট পার্টি, বাংলাদেশ আম জনতা পার্টি, বাংলাদেশ ডেমোক্রেসি মুভমেন্ট (বিডিএম), বাংলাদেশ তৃণমূল জনতা পার্টি, এবি পার্টি, সম্মিলিত সংগ্রাম পরিষদ, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী আন্দোলন-(বিএনএম), বাংলাদেশ এলডিপি, বাংলাদেশ জাস্টিস পার্টি, বাংলাদেশ ন্যাশনাল গ্রিন পার্টি, বাংলাদেশ সর্বজনীন দল, বাংলাদেশ ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক লীগ, গণ রাজনৈতিক জোট-গর্জো, বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট পার্টি, বাংলাদেশ বেকার সমাজ (বাবেস), নতুন ধারা বাংলাদেশ-এনডিবি, বাংলাদেশ হিন্দু লীগ, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম, নেজামে ইসলাম পার্টি, বাংলাদেশ জাতীয় দল, জাতীয় জনতা পার্টি, কৃষক শ্রমিক পার্টি (কে. এস. পি), বাংলাদেশ তৃণমূল লীগ, বাংলাদেশ ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক পার্টি (বি এল ডিপি), ভাসানী অনুসারী পরিষদ, নাকফুল বাংলাদেশ, মুক্ত রাজনৈতিক আন্দোলন, বাংলাদেশ নেজামে ইসলাম পার্টি, বাংলাদেশ তৃণমূল কংগ্রেস, মুক্তিযোদ্ধা কমিউনিজম ডেমোক্রেটিক পার্টি, রাজনৈতিক আন্দোলন, বাংলাদেশ জনতার অধিকার পার্টি, বাংলাদেশ হিউম্যানিস্ট পার্টি- বিএইচপি, বাংলাদেশ ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক পার্টি (বিএনজিপি), জাতীয় স্বাধীনতা পার্টি, যুব সেচ্ছাসেবক লীগ, ন্যাপ (ভাসানী), ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি (ভাসানী ন্যাপ), বাংলাদেশ জাতীয় লীগ (বিজেএল), বাংলাদেশ ইসলামিক গণতান্ত্রিক লীগ, বাংলাদেশ মাইনরিটি পার্টি, বাংলাদেশ জাতীয় বঙ্গ লীগ, বাংলাদেশ আওয়ামী পার্টি, গণঅধিকার পরিষদ, নাগরিক ঐক্য, রাষ্ট্র সংস্কার আন্দোলন, বাংলাদেশ সনাতন পার্টি (বিএসপি), বাংলাদেশ জনতা পার্টি (বিজেপি), জনতার অধিকার পার্টি (পি আর পি), বাংলাদেশ সুপ্রিম পার্টি (বিএসপি),বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা লীগ, ইনসানিয়াত বিপ্লব বাংলাদেশ, বাংলাদেশ লেবার পার্টি, জনস্বার্থে বাংলাদেশ, বাংলাদেশ জাতীয় ইনসাফ পার্টি, সাধারণ জনতা পার্টি, ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক পার্টি (এলডিপি), বাংলাদেশ মানবতাবাদী দল, বাংলাদেশ ইউনাইটেড ইসলামিক পার্টি (বি.ইউ.আই.পি), বাংলাদেশ এনভায়রনমেন্ট গ্রিন পার্টি, বাংলাদেশ গণ আজাদী লীগ, বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় চার নেতা কল্যাণ পরিষদ, বাংলাদেশ গণতান্ত্রিক দল (বিডিপি), মুক্তিযোদ্ধা যুব কমান্ড, গণ অধিকার পার্টি (পি আর পি), বাংলাদেশ মাইনরিটি জনতা পার্টি (বি এম জে পি) ও যুবসমাজ পার্টি।

সংসদ নির্বাচনে অংশ নিতে রাজনৈতিক দলের নিবন্ধন বাধ্যতামূলক। নিবন্ধন চালুর পর বর্তমানে ৩৯টি দল নিবন্ধিত রয়েছে। দলীয় প্রার্থীর বাইরে অন্যদের স্বতন্ত্র প্রার্থী হতে হয়।

গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ (আরপিও) অনুযায়ী, কমিশনের তিনটি শর্তের মধ্যে একটি পূরণ হলে একটি দল নিবন্ধনের যোগ্য বিবেচিত হয়। নতুন কোনও দলকে নিবন্ধন পেতে হলে শেষ শর্তটিই পূরণ করতে হয়।

২০০৮ সালে প্রথম নিবন্ধন প্রথা চালু হয়। নবম সংসদের আগে ১২৬টি দল আবেদন করলেও  শর্ত পূরণ করে ৩৯টি দল নিবন্ধন পায়। দশম সংসদ নির্বাচনের আগে ৪৩টি দল আবেদন করে। আরও তিনটি দল ২০১৩ সালে নিবন্ধন পায়।

একাদশ সংসদ নির্বাচনের আগে ৭৬টি দল আবেদন করলেও একটি দলও নিবন্ধনের যোগ্য বিবেচিত হয়নি। অবশ্য, আদালতের আদেশে তখন দু’টি দল নিবন্ধন পায়।

সব মিলিয়ে ৪৪টি দল নিবন্ধন পেলেও ফ্রিডম পার্টি, জামায়াতে ইসলাম, জাগপা, ঐক্যবদ্ধ নাগরিক আন্দোলন ও পিডিপির নিবন্ধন বাতিল হয়। এখন ৩৯টি দল নিবন্ধিত রয়েছে।

ইসি আলমগীর যা বলছেন

রবিবার নির্বাচন কমিশনার মো. আলমগীর সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমরা অফিসারদের দিয়ে কয়েকটা কমিটি করে দেবো। সেখানে আমাদের সংবিধান ও আরপিও-সহ যে সব বিষয় আছে, তার আলোকে দলগুলো যেসব তথ্য ও ডকুমেন্ট দিয়েছে, তা কমিটি পরীক্ষা করে দেখা হবে। আইনি যেসব শর্ত আছে, সেসব শর্ত পূরণ করলো কিনা, সেগুলো দেখতে হবে।’

তিনি জানান, কোনও শর্ত যদি অপূর্ণ থাকে, তাহলে তাকে নিবন্ধন দেওয়ার সুযোগ নেই। সব শর্তই পূরণ করতে হবে।

ইসি আলমগীর বলেন, ‘হয়তো কালকে কমিশন সচিবালয় ফাইল তুলবে। এরপর তারা যাচাই-বাছাই করে দেখবে। তারপর আমাদের কাছে দেবে। আমরা যদি কাগজপত্র দেখে মনে করি, আরও যাচাই করতে হবে, তাহলে সেটা করা হবে। আর যদি ১০০ ভাগ শর্ত পূরণ হয় নিবন্ধন পাবে। সব দলের জন্য সেই একই শর্ত।’

এই নির্বাচন কমিশনার জানান, যারা নিবন্ধন পাবে তাদের জানিয়ে দেওয়া হবে, আর যারা পাবে না তাদের জানিয়ে দেওয়া হবে যে, কোন শর্ত পূরণ না করার জন্য তাদের নিবন্ধন দেওয়া হলো না।

শর্তগুলো হলো— ১. দেশ স্বাধীন হওয়ার পর যে কোনও জাতীয় নির্বাচনে আগ্রহী দলটির যদি অন্তত একজন সংসদ সদস্য থাকেন, ২. যেকোনও একটি নির্বাচনে দলের প্রার্থী অংশ নেওয়া আসনগুলোতে মোট প্রদত্ত ভোটের ৫ শতাংশ পান। ৩. দলটির যদি একটি সক্রিয় কেন্দ্রীয় কার্যালয়, দেশের কমপক্ষে এক-তৃতীয়াংশ (২১টি) প্রশাসনিক জেলায় কার্যকর কমিটি এবং অন্তত ১০০টি উপজেলা/মেট্রোপলিটন থানায় কমপক্ষে ২০০ ভোটারের সমর্থন সংবলিত দলিল থাকে।

একযুগে নিবন্ধন পেলো যারা

বর্তমানে ইসিতে নিবন্ধিত দলগুলো হচ্ছে— বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপি, গণতন্ত্রী পার্টি, লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি-এলডিপি, বাংলাদেশের সাম্যবাদী দল (এম.এল), কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ, বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি, জাতীয় পার্টি-জেপি, বিকল্পধারা বাংলাদেশ, জাতীয় পার্টি, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদ, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জেএসডি, জাকের পার্টি, গণফোরাম, গণফ্রন্ট, বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি (বাংলাদেশ ন্যাপ), বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি, ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশ, বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টি, ইসলামী ঐক্যজোট, বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ, বাংলাদেশ কংগ্রেস, বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট, বাংলাদেশের বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টি, খেলাফত মজলিস, বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল-বাসদ, বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি -বিজেপি, বাংলাদেশ তরিকত ফেডারেশন, বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলন, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ, বাংলাদেশ মুসলিম লীগ-বিএমএল, বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক মুক্তিজোট (মুক্তিজোট), বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্ট-বিএনএফ, জাতীয়তাবাদী গণতান্ত্রিক আন্দোলন-এনডিএম, বাংলাদেশ মুসলিম লীগ ও ন্যাশনাল পিপলস পার্টি-এনপিপি।

0 comment
0 FacebookTwitterPinterestEmail

 ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের নতুন কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। কমিটিতে সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন বেনজীর আহমদ। সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন পনিরুজ্জামান তরুন।
শনিবার রাজধানীর আগারগাঁও শেরেবাংলা নগরের পুরাতন বাণিজ্য মেলার মাঠে ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের তাদের নাম ঘোষণা করেন। নতুন কমিটির সভাপতি বেনজীর আহমদ আগের কমিটিতেও সভাপতি ছিলেন। তিনি ঢাকা-২০ (ধামরাই) আসনের সংসদ সদস্য। পনিরুজ্জামান তরুন এর আগে ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছেন। কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ছিলেন, ঢাকা জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ছিলেন তিনি।

0 comment
0 FacebookTwitterPinterestEmail

ঢাকা: বেলা ১২টায় পবিত্র কোরআন তিলাওয়াতের মধ্যদিয়ে শুরু হয়েছে রংপুরে বিএনপির বিভাগীয় সমাবেশ। মঞ্চে স্থানীয় নেতারা বক্তব্য দিচ্ছেন। মূল পর্ব শুরু হবে কিছুক্ষণ পর। এরই মধ্যে রংপুরের কালেক্টরেট ঈদগাঁও মাঠের সমাবেশস্থল জনসমুদ্রে পরিণত হয়েছে। মাঠে দাঁড়ানোর ঠাঁই নেই। তীব্র রৌদ্রের মধ্যেও কেন্দ্রীয় নেতাদের বক্তব্য শুনতে মুখিয়ে আছেন বিভাগের আট জেলা থেকে আসা নেতাকর্মীরা। মঞ্চে উপস্থিত হয়েছেন কেন্দ্রীয় নেতারা। তবে মাঠে জায়গা না পেয়ে নগরীর বিভিন্ন সড়ক ও সড়কের অলিগলিতে অবস্থান নিয়েছেন নেতাকর্মীরা। সমাবেশস্থলের চারদিকে প্রায় ১ কিলোমিটার রাস্তা কানায় কানায় পূর্ণ। হাঁটা চলার মতোও নেই পরিবেশ।

এদিকে এখনো বিভিন্ন জেলা থেকে খন্ড খন্ড মিছিলে নিয়ে আসছেন নেতাকর্মীরা। তবে মাঠ ও রাস্তাঘাট নেতাকর্মীদের চাপে মিছিলগুলো সমাবেশস্থলে পৌঁছাতে পারছে না।

এদিকে, রংপুরের সমাবেশের মঞ্চে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার জন্য একটি ফাঁকা আসন রাখা হয়েছে। এর আগে, ময়ময়সিংহ ও খুলনা বিএনপির সমাবেশে এমনটি রাখা হয়েছিল। বিএনপি নেতারা বলছেন, অন্যায়ভাবে খালেদা জিয়াকে বন্দি করে রেখেছে সরকার। তিনি মুক্ত থাকলে এখানে উপস্থিত থাকতেন। তাই আসন ফাঁকা রাখা হয়েছে।

নির্বাচনকালীন তত্ত্বাবধায়ক সরকার, দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণ, খালেদা জিয়ার মুক্তিসহ নানা দাবিতে বিএনপি দেশের প্রতিটি বিভাগীয় শহরে গণসমাবেশ করছে। এর ধারাবাহিকতায় আজ রংপুর কালেক্টরেট ঈদগাহ মাঠে বিএনপির চতুর্থ গণসমাবেশ চলছে।

0 comment
0 FacebookTwitterPinterestEmail
ঢাকা: গত ২২আগস্ট বাদ আসর খেলাফত মজলিস ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের উদ্যোগে নায়েবে আমীর মরহুম অধ্যাপক আব্দুল হালিমের জীবন ও কর্ম শীর্ষক আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। শাখা সভাপতি অধ্যাপক মাওলানা আজিজুল হকের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক তাওহীদুল ইসলাম তুহিনের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সংগ্রামী মহাসচিব ড. আহমদ আব্দুল কাদের।
বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে আলোচনা করেন নায়েবে আমীর মাওলানা আহমদ আলী কাসেমী, অধ্যাপক আবদুল্লাহ ফরিদ, কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য ও আব্দুল হালিম ভাইয়ের দীর্ঘদিনের সাথী মাওলানা জিয়াউল হক শামিম, যুগ্ম মহাসচিব এডভোকেট জাহাঙ্গীর হোসাইন, মুহাম্মদ মুনতাসীর আলী, ড. মোস্তাফিজুর রহমান ফয়সাল, অধ্যাপক আব্দুল জলিল, কেন্দ্রীয় সমাজকল্যাণ সম্পাদক আবু সালেহীন, মহানগরী সহ সভাপতি মুহাম্মদ জহিরুল ইসলাম, মুহাম্মদ জিল্লুর রহমান, সহ সাধারণ সম্পাদক মোঃ আবুল হোসেন, মুহাম্মদ হুমায়ুন কবির আজাদ, কাজী আরিফুর রহমান, দাওয়া বিষয়ক সম্পাদক মাওলানা সরদার নেয়ামত উল্লাহ, আইন বিষয়ক সম্পাদক এডভোকেট শায়খুল ইসলাম, শ্রম বিষয়ক সম্পাদক মাহাবুবুর রহমান চৌধুরী, দপ্তর সম্পাদক এডভোকেট সানাউল্লাহ, শ্রমিক মজলিসের কেন্দ্রীয় দপ্তর সম্পাদক কবি খালেদ সানোয়ার প্রমূখ।
0 comment
0 FacebookTwitterPinterestEmail

আপডেট ডেস্ক : খেলাফত মজলিসের নায়েবে আমীর এবং ঐতিহ্যবাহী সাংস্কৃতিক সংগঠন দাবানল শিল্পী গোষ্ঠীর প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ও আমৃত্যু উপদেষ্ঠা অধ্যাপক মুহাম্মদ আবদুল হালিম ইন্তেকাল করেছেন। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন।

আজ (১৮ অক্টোবর) ভোররাত ৩টায় রাজধানীর এসআইবিএল ফাউন্ডেশন হাসপাতালে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিলো ৭০ বছর। তিনি কর্মজীবনে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের পরিচালক ছিলেন।

রাজধানীর মীর হাজিরবাগ সকাল সাড়ে ৯টায় তামিরুল মিল্লাত মাদরাসা মসজিদে জানাযা অনুষ্ঠিত হবে। জানাযা শেষে গ্রামের বাড়ী পিরোজপুরের নেসারাবাদে দাফন হবে।

0 comment
0 FacebookTwitterPinterestEmail