সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪

মরক্কোতে ভূমিকম্পে নিহতের সংখ্যা ২০০০ ছাড়ালো, ৩ দিনের রাষ্ট্রীয় শোক

মরক্কোতে শুধু লাশ আর লাশ। ভূমিকম্পের ধ্বংসস্তূপ থেকে বেরিয়ে আসছে একের পর এক লাশ। ক্ষতবিক্ষত লাশ। অঙ্গহানি হওয়া লাশ। কোনোটার হাত নেই। কোনোটার পা নেই। কারো মাথা থেঁতলে বিকৃত হয়ে গেছে। চেনার উপায় নেই। প্রতিক্ষণই এমন সব লাশ বেরিয়ে আসছে ধ্বংসস্তূপের নিচ থেকে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত নিহতের সংখ্যা কমপক্ষে ২০০০।

আহতও হয়েছেন প্রায় সমসংখ্যক মানুষ। তাদের অনেকের অবস্থা আশঙ্কাজনক। এছাড়া ধ্বংসস্তূপের নিচে আটকা পড়ে আছেন বহু মানুষ। ফলে নিহতের সংখ্যা তর তর করে বাড়ার আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা। এ খবর দিয়েছে অনলাইন বিবিসি। 

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে, মারাত্মক আহতের সংখ্যা কমপক্ষে ১৪০০। সবচেয়ে বেশি হতাহত হয়েছেন মারাকেশ শহরের ঠিক দক্ষিণে। এ অবস্থায় দেশটির ষষ্ঠ বাদশা মোহাম্মদ দেশজুড়ে তিনদিনের জাতীয় শোক ঘোষণা করেছেন। এ সময়ে সব সরকারি ভবনে জাতীয় পতাকা থাকবে অর্ধনমিত। জীবিতদের দ্রুত আশ্রয়, খাদ্য ও অন্যান্য সেবা নিশ্চিত করার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। সেনাবাহিনীকে উদ্ধার তৎপরতায় নামার নির্দেশ দিয়েছেন। ভিকটিমদের সহায়তায় রক্ত দান করছেন মরক্কোর জনগণ। 

শুক্রবার স্থানীয় সময় রাত ১১টার দিকে ভয়াবহ শক্তিশালী ভূমিকম্প আঘাত হানে দেশটিতে। রিখটার স্কেলে এর মাত্রা ছিল ৬.৮। এতে দেশটির প্রত্যন্ত পাহাড়ি এলাকা বিধ্বস্ত হয়। অনেক গ্রাম মাটির সঙ্গে মিশে গেছে। স্বজনহারা মানুষের আহাজারিতে সেখানকার আকাশ বাতাস ভারি হয়ে উঠেছে। তারপরও জীবনকে বাঁচাতে হয়। এ জন্য তারা ঘরবাড়ি ছেড়ে রাস্তায় খোলা আকাশের নিচে দিনরাত পার করছেন। 

ভূমিকম্পের উৎসস্থল ছিল পর্যটন শহর মারাকেশ থেকে প্রায় ৭১ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে হাই এটলাস মাউন্টেইনে। মারাকেশ শহরটি পর্যটকদের জন্য আকর্ষণীয় এক স্থান। কারণ এটি বিশ্ব ঐতিহ্যের অংশ। ভূমিকম্পের তীব্রতা এত বেশি ছিল যে, তা রাজধানী রাবাত থেকেও অনুভূত হয়েছে। কম্পন অনুভূত হয়েছে কাসাব্লাঙ্কা, আগাদির এবং ইসোউইরা থেকে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে, সবচেয়ে বেশি মানুষ মারা গেছেন আল হাউজ প্রদেশে। এরপরেই রয়েছে তারৌদান্ত প্রদেশ। তবে কম মানুষ মারা গেছেন মারাকেশ শহরে। ইউনেস্কো ঘোষিত ওল্ড সিটিতেও বেশ ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। 

ওই এলাকাটি পাহাড়ি হওয়ায় বেশির ভাগ বাড়িঘর মাটির ইট, পাথর এবং কাঠ দিয়ে তৈরি। ফলে সহজেই তা ধসে পড়ার কথা। কিন্তু যে মাত্রায় ভূমিকম্প হয়েছে, তাতে কংক্রিটে, লোহায় তৈরি বাড়িও ধসে পড়ার যথেষ্ট আশঙ্কা থাকে। ঘটনাস্থলে পৌঁছেছেন বিবিসির সংবাদদাতা নিক বিকি। তিনি একটি গ্রামে পৌঁছার পর দেখতে পান এক স্থানে উদ্ধার করে রাখা হয়েছে ১৮টি মৃতদেহ। তার পাশে বসে আহাজারি করছেন প্রবীণ এক নারী। বহু মানুষ আফটার শকের আশঙ্কায় খোলা আকাশের নিচে রাত কাটাচ্ছেন। 

এরই মধ্যে খাদ্য ও পানির সংকট সৃষ্টি হয়েছে। কিন্তু দুর্গত এলাকা পাহাড়ি হওয়ায় সেখানে পৌঁছানো খুব কঠিন। জরুরি উদ্ধার ও ত্রাণ তৎপরতা চালানোও কঠিন হয়ে পড়ছে।  মানব জমিন

আরো পড়ুন ...