শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪

ফুকুশিমা পারমাণবিক তেজস্ক্রিয় পানি সমুদ্রে ফেলার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে দ. কোরিয়ায় বিক্ষোভ

ফুকুশিমা পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের তেজস্ক্রিয় পানি সমুদ্রে ফেলার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে দক্ষিন কোরিয়ায় শত শত মানুষ বিক্ষোভ করেছে । সিউলের কেন্দ্রস্থলে শত শত পরিবেশবাদী সমবেত হয়ে জাপানের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে শ্লোগান দেন। সাগর বাঁচাতে তার এ তেজস্ক্রিয় পানি স্থল ভাগে রাখার দাবী জানান। আল-জাজিরা

ভূমিকম্প ও সুনামিতে ধ্বংস হয়ে যাওয়া ফুকুশিমা পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের তেজস্ক্রিয় পানি শোধন করে সমুদ্রে নিষ্কাশনের জন্য জাতিসংঘ আণবিক শক্তি সংস্থার (আইএইএ) অনুমতি দেয়। আগস্ট থেকে জাপান এ পানি প্রশান্ত মহাসাগরে ফেলার কাজ শুরু করবে বলে ঘোষনা দিয়েছে।

বিষয়টি নিয়ে দুই বছর পর্যালোচনার পর আইএইএ বলেছে, জাপান ফুকুশিমা পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের চুল্লির তেজস্ক্রিয় পানি সাগরে ছাড়ার যে পরিকল্পনা করেছে, তা আন্তর্জাতিক নিরাপত্তার মানদণ্ড অনুযায়ীই করা হয়েছে। এতে মানুষ ও পরিবেশের ওপর তেমন ক্ষতিকর কোনও প্রভাব পড়বে না।

ফুকুশিমা বিদ্যুৎকেন্দ্রে পানি জমা রাখার জায়গা শেষ হয়ে আসছে। এই পানি পারমাণবিক চুল্লি শীতলীকরণে ব্যবহার হত। আইএইএ প্রধান রাফায়েল গ্রোসি জাপানকে পানি সাগরে ফেলার ছাড়পত্র দিয়েছেন।

 ২০১১ সালের ১১ মার্চ ভয়াবহ এক ভূমিকম্প এবং এ থেকে সৃষ্ট সুনামির বিশাল জলোচ্ছ্বাসে জাপানের ফুকুশিমায় অবস্থিত বিদ্যুৎকেন্দ্রটির চারটি পারমাণবিক চুল্লি প্লাবিত হয়ে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ হয়ে গিয়েছিল।

ফুকুশিমার ওই বিপর্যয়কে তুলনা করা হয় ইউক্রেইনের চেরনোবিল পারমাণবিক দুর্ঘটনার সঙ্গে। দুটি বিপর্যয়েই প্রকৃতি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। জীবন বিপন্ন হওয়ায় আশেপাশের এলাকা থেকে লাখো মানুষকে সরিয়ে নেওয়া হয়।

ফুকুশিমার তেজস্ক্রিয় পানি সাগরে ছাড়ার বিষয়টি প্রথম ২০২১ সালের অনুমোদন করে জাপান সরকার। ওই সময় জাপান সরকার বলেছিল, তেজস্ক্রিয় ১০ লাখ টন পানি শোধন করে পর্যায়ক্রমে সাগরে ফেলা হবে।

পারমাণবিক চুল্লি ঠান্ডা রাখতে ব্যবহৃত তেজস্ক্রিয় পানি প্রতিদিনই ফিল্টার হয়ে ট্যাংকে সঞ্চিত হচ্ছে। সাগরে ফেলার আগে এই পানিতে থাকা তেজস্ক্রিয় আইসোটোপ বেশিরভাগই দূর করা হয়েছে। তবে ট্রিটিয়ামের মাত্রা এখনও নিরাপত্তার জাতীয় মানদণ্ডের ওপরে আছে বলে জানিয়েছে বিদ্যুৎকেন্দ্রটি পরিচালনা কোম্পানি টেপকো।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ট্রিটিয়াম পানি থেকে আলাদা করা খুব কঠিন এবং এর মাত্রা বেশি থাকলেই কেবল তা মানুষের জন্য ক্ষতিকর হতে পারে।ফলে সাগরে পানি ছাড়ার আগে এই ট্রিটিয়ামকে পাতলা করে বিপজ্জনক মাত্রার নিচে নামাতে হবে।

আরো পড়ুন ...