মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪

কিয়েভে রাশিয়ার হামলার পর মস্কোতে ড্রোন হামলা

ইউক্রেনের রাজধানী কিয়েভে রাশিয়ার হামলার পর মস্কোতে ড্রোন হামলা হয়েছে। এতে ইউক্রেন যুদ্ধ জটিল আকার ধারণ করবে বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। এই ড্রোন হামলার জন্য ইউক্রেনকে দায়ী করেছে রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়। কিন্তু ড্রোন হামলায় সরাসরি জড়িত থাকার কথা অস্বীকার করেছে ইউক্রেন। রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় মিডিয়ার খবরে বলা হয়েছে, এই হামলায় দু’জন আহত হয়েছেন এবং কয়েকটি ভবন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এর আগে সোমবার দিবাগত রাতভর কিয়েভের ওপর বোমা হামলা চালাতে থাকে রাশিয়া। তাতে কমপক্ষে একজন নিহত হয়েছেন। এ সময় ইউক্রেনের আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা ইরানে তৈরি ২৯টি শাহেদ ড্রোন গুলি করে ভূপাতিত করার দাবি করেছে। ইউক্রেনের সেনাবাহিনী বলেছে, এটা ছিল এ মাসে রাজধানী কিয়েভের ওপর রাশিয়ার ১৭তম আকাশপথে হামলা। এ খবর দিয়েছে অনলাইন আল জাজিরা, বিবিসি। 
ওদিকে ডাউনিং স্ট্রিট জানিয়ে দিয়েছে, মস্কো হামলায় বৃটিশ কোনো সরঞ্জাম ব্যবহার করা হয়নি।

প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনাকের সরকারি মুখপাত্র বলেন, হামলার মূলে কারা সে সম্পর্কে ধারণা করতে পারছে না ১০ ডাউনিং স্ট্রিট। 
ওই ঘটনার পরে বক্তব্য রাখেন রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ। বক্তব্যে তিনি মস্কোতে ড্রোন হামলার কথা উল্লেখ করেননি। পক্ষান্তরে পূর্ব আফ্রিকা সফরের সময় তিনি পশ্চিমা নেতাদের বিরুদ্ধে বিষোদগার করেন। বলেন, ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভোলোদিমির জেলেনস্কির শান্তি পরিকল্পনায় সমর্থন দিয়ে সরাসরি গণহত্যায় সমর্থন দিচ্ছেন পশ্চিমা নেতারা। এতে তিনি গত বছরের শেষের দিকে জেলেনস্কির ১০ দফা শান্তি পরিকল্পনার ইঙ্গিত দেন। সংবাদ সম্মেলনে ল্যাভরভ বলেন, ওই পরিকল্পনার মাধ্যমে পূর্ব ইউক্রেন এবং ক্রাইমিয়াতে রাশিয়ার সব কিছু ধ্বংস করার কথা বলা হয়েছে। মানব জমিন

আরো পড়ুন ...