রবিবার, ৩ মার্চ ২০২৪

উৎক্ষেপণের কয়েক মিনিট পরেই ধ্বংস হয়ে গেলো ইলন মাস্কের রকেট

শেষ রক্ষা হলো না। এখনও পর্যন্ত নির্মিত বৃহত্তম এবং সবচেয়ে শক্তিশালী ইলন মাস্কের রকেটটি টেক্সাস থেকে উৎক্ষেপণের কয়েক মিনিটের মধ্যেই ভেঙে পড়ে। ইলন মাস্কের বেসরকারি মহাকাশ গবেষণা কেন্দ্র স্পেসএক্স-এর মহাকাশযান স্টারশিপ বৃহস্পতিবার সকালে যাত্রা শুরু করেছিল। কিন্তু যাত্রা শুরুর মাত্র চার মিনিটের মধ্যে মাঝ আকাশে প্রবল বিস্ফোরণে ধ্বংস হয়ে যায় মহাকাশযানটি। চাপের সমস্যার কারণে এই সপ্তাহের শুরুতে মহাকাশযানের  লঞ্চের প্রোগ্রাম একবার বাতিল হয়ে যায় ।  কিন্তু এবারও উৎক্ষেপণের পর গতি বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে মহাকাশযানটি প্রবল চাপ সহ্য করতে পারেনি। দেখা গেছে যে রকেট সিস্টেমের দুটি বিভাগ – বুস্টার এবং ক্রুজ শিপ  – টেকঅফের পরে সঠিকভাবে নিজেদের  আলাদা করতে অক্ষম ছিল।  যার জেরেই সম্ভবত মহাকাশযানটির উৎক্ষেপণ  ব্যর্থ হয়। রকেটটি নিজে থেকে বিস্ফোরিত হয়েছে কিনা বা ফ্লাইট টার্মিনেশন সিস্টেম সক্রিয় করা হয়েছে কিনা তা তাৎক্ষণিকভাবে পরিষ্কার নয়। স্পেসএক্স আগে থেকেই জানতো যে সাফল্যের সম্ভাবনা কম  এবং পরীক্ষার ফ্লাইটের লক্ষ্য ছিল ডেটা সংগ্রহ করা।

রকেট বিচ্ছিন্ন হওয়ার পরেও স্পেসএক্স-এর কর্মচারীরা উল্লাস করেন । স্পেসএক্স টুইটারে একটি বিবৃতিতে বিস্ফোরণের উল্লেখ করে বলেছে -”ফ্লাইট পরীক্ষাটি যথেষ্ট উত্তেজনাপূর্ণ ছিল না, বুস্টার এবং ক্রুজ শিপ  বিচ্ছিন্ন হওয়ার আগে স্টারশিপে বিস্ফোরণ ঘটে যায়। ‘ স্টারশিপ ক্রুজ জাহাজ – ১০০ জন মহাকাশচারীকে বহন করার জন্য ডিজাইন করা হয়েছে।  সুপার হেভি বুস্টার রকেটের উপরে রাখা হয়েছিল এটিকে , যার সাথে সম্পৃক্ত ছিল ৩৩ টি  ইঞ্জিন। প্রায় তিনটি যাত্রীবাহী জেটের মতো, ম্যামথ মহাকাশযানটি স্যাটার্ন  ভি রকেটের চেয়েও ১০মিটার লম্বা যা ১৯৬৯ সালে মানুষকে চাঁদে পাঠিয়েছিল। স্পেসএক্সের প্রতিষ্ঠাতা ইলন মাস্ক, লঞ্চটি এগিয়ে যাওয়ার জন্য ফেডারেল এভিয়েশন অ্যাডমিনিস্ট্রেশন থেকে গত সপ্তাহে প্রয়োজনীয় অনুমোদন পেয়েছিলেন। সিস্টেমের উপরের এবং নীচের উভয় অংশই কোমলভাবে অবতরণের জন্য এবং  নিরাপদে পৃথিবীতে ফিরে আসার জন্য ডিজাইন করা হয়েছে যাতে সেগুলি পুনরায় ব্যবহার করা যায়। স্পেসএক্স তার রকেট উৎক্ষেপণের জন্য টেক্সাসের বোকা চিকাতে মেক্সিকো উপসাগরে স্টারবেস নামে একটি নিজস্ব স্পেসপোর্ট তৈরি করেছে। ভবিষ্যতের পরীক্ষার জন্য আরও বেশ কিছু স্টারশিপ ইতিমধ্যেই তৈরী করার প্রস্তুতি শুরু হয়ে গেছে । আসলে মাস্কের লক্ষ্য মঙ্গল গ্রহ। তিনি মনে করেন পারমাণবিক যুদ্ধের জেরে পৃথিবী যদি কোনোদিন ধ্বংস হয়ে যায় তাহলে মানবজাতিকে রক্ষার জন্য অন্য গ্রহে বসতি স্থাপনের প্রয়োজন পড়বে। স্পেসএক্স দাবি করেছে যে স্টারশিপ, যার বহন  ক্ষমতা ১৫০ টন পর্যন্ত, দীর্ঘমেয়াদী আন্তঃগ্রহীয় ফ্লাইটে কয়েক ডজন লোককে পরিবহন করতে সক্ষম হবে। এই বছরেই  ১১ জনের  একটি টিমকে নিয়ে চাঁদের চারপাশে  প্রদক্ষিণের কর্মসূচি রয়েছে স্পেসএক্স- এর । নাসা তার আর্টেমিস প্রোগ্রামের অংশ হিসাবে ২০২৫ সালের মধ্যে প্রথম নারী  মহাকাশচারীকে চাঁদে অবতরণ করার জন্য স্পেসএক্স-এর সাথে চুক্তি সই করেছে। সংস্থাটি পৃথিবীতে বাণিজ্যিক ভ্রমণের জন্য মহাকাশযানটিকে শাটল হিসাবে ব্যবহার করার দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা ঘোষণা করেছে, যা  লন্ডন থেকে টোকিও পৌঁছে দেবে এক ঘন্টায়।রকেট বিচ্ছিন্ন হওয়ার পরেও স্পেসএক্স-এর কর্মচারীরা উল্লাস করেন । স্পেসএক্স টুইটারে একটি বিবৃতিতে বিস্ফোরণের উল্লেখ করে বলেছে -”ফ্লাইট পরীক্ষাটি যথেষ্ট উত্তেজনাপূর্ণ ছিল না, বুস্টার এবং ক্রুজ শিপ  বিচ্ছিন্ন হওয়ার আগে স্টারশিপে বিস্ফোরণ ঘটে যায়। ‘ স্টারশিপ ক্রুজ জাহাজ – ১০০ জন মহাকাশচারীকে বহন করার জন্য ডিজাইন করা হয়েছে।  সুপার হেভি বুস্টার রকেটের উপরে রাখা হয়েছিল এটিকে , যার সাথে সম্পৃক্ত ছিল ৩৩ টি  ইঞ্জিন। প্রায় তিনটি যাত্রীবাহী জেটের মতো, ম্যামথ মহাকাশযানটি স্যাটার্ন  ভি রকেটের চেয়েও ১০মিটার লম্বা যা ১৯৬৯ সালে মানুষকে চাঁদে পাঠিয়েছিল। স্পেসএক্সের প্রতিষ্ঠাতা ইলন মাস্ক, লঞ্চটি এগিয়ে যাওয়ার জন্য ফেডারেল এভিয়েশন অ্যাডমিনিস্ট্রেশন থেকে গত সপ্তাহে প্রয়োজনীয় অনুমোদন পেয়েছিলেন। সিস্টেমের উপরের এবং নীচের উভয় অংশই কোমলভাবে অবতরণের জন্য এবং  নিরাপদে পৃথিবীতে ফিরে আসার জন্য ডিজাইন করা হয়েছে যাতে সেগুলি পুনরায় ব্যবহার করা যায়। স্পেসএক্স তার রকেট উৎক্ষেপণের জন্য টেক্সাসের বোকা চিকাতে মেক্সিকো উপসাগরে স্টারবেস নামে একটি নিজস্ব স্পেসপোর্ট তৈরি করেছে। ভবিষ্যতের পরীক্ষার জন্য আরও বেশ কিছু স্টারশিপ ইতিমধ্যেই তৈরী করার প্রস্তুতি শুরু হয়ে গেছে । আসলে মাস্কের লক্ষ্য মঙ্গল গ্রহ। তিনি মনে করেন পারমাণবিক যুদ্ধের জেরে পৃথিবী যদি কোনোদিন ধ্বংস হয়ে যায় তাহলে মানবজাতিকে রক্ষার জন্য অন্য গ্রহে বসতি স্থাপনের প্রয়োজন পড়বে। স্পেসএক্স দাবি করেছে যে স্টারশিপ, যার বহন  ক্ষমতা ১৫০ টন পর্যন্ত, দীর্ঘমেয়াদী আন্তঃগ্রহীয় ফ্লাইটে কয়েক ডজন লোককে পরিবহন করতে সক্ষম হবে। এই বছরেই  ১১ জনের  একটি টিমকে নিয়ে চাঁদের চারপাশে  প্রদক্ষিণের কর্মসূচি রয়েছে স্পেসএক্স- এর । নাসা তার আর্টেমিস প্রোগ্রামের অংশ হিসাবে ২০২৫ সালের মধ্যে প্রথম নারী  মহাকাশচারীকে চাঁদে অবতরণ করার জন্য স্পেসএক্স-এর সাথে চুক্তি সই করেছে। সংস্থাটি পৃথিবীতে বাণিজ্যিক ভ্রমণের জন্য মহাকাশযানটিকে শাটল হিসাবে ব্যবহার করার দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা ঘোষণা করেছে, যা  লন্ডন থেকে টোকিও পৌঁছে দেবে এক ঘন্টায়। মানব জমিন

আরো পড়ুন ...