Home Archives
Monthly Archives

April 2022

ঢাকাঃ সাবেক অর্থমন্ত্রী, বীর মুক্তিযোদ্ধা ও ভাষা সংগ্রামী আবুল মাল আবদুল মুহিত আর নেই। শুক্রবার (২৯ এপ্রিল ২০২২) দিবাগত রাত ১২টা ৫৬ মিনিটে বৃহত্তর সিলেটের এই কীর্তিমান পুরুষের জীবনবসান ঘটে (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্নাইলাইহি রাজিউন)। তিনি ছিলেন একাধারে রাজনীতিবিদ, খ্যাতনামা অর্থনীতিবিদ, লেখক এবং ভাষাসৈনিক। ছিলেন রবীন্দ্র গবেষক। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৮৮ বছর। দীর্ঘদিন ধরে তিনি বিভিন্ন ধরনের শারীরিক ও বার্ধক্যজনিত জটিলতায় ভুগছিলেন।

আবুল মাল আবদুল মুহিতের প্রথম জানাজা সকাল ১১টায় গুলশান আজাদ মসজিদে অনুষ্ঠিত হবে। সংসদ প্লাজায় সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের দ্বিতীয় জানাজার কর্মসূচি বাতিল করা হয়েছে। এরপর সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য তাঁর মরদেহ শহীদ মিনারে নেয়া হবে। এরপর দাফনের জন্য মরদেহ নেওয়া হবে জন্মস্থান সিলেটে।
বর্ণাঢ্য জীবন
আবুল মাল আবদুল মুহিত ১৯৩৪ সালের ২৫শে জানুয়ারি সিলেটে জন্মগ্রহণ করেন। তৎকালীন সিলেট জেলা মুসলিম লীগের প্রতিষ্ঠাতা আবু আহমদ আবদুল হাফিজ ও সৈয়দা শাহার বানু চৌধুরীর ১৪ সন্তানের মধ্যে তৃতীয় সন্তান মুহিত

স্ত্রী সৈয়দা সাবিয়া মুহিত একজন ডিজাইনার। তিন সন্তানের মধ্যে কন্যা সামিনা মুহিত ব্যাংকার ও আর্থিক খাতের বিশেষজ্ঞ। বড় ছেলে সাহেদ মুহিত বাস্তুকলাবিদ এবং ছোট ছেলে সামির মুহিত শিক্ষক।

যুক্তরাষ্ট্রের হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতিতে উচ্চতর ডিগ্রি নেওয়া আবদুল মুহিত বরাবরই একজন মেধাবী মানুষ ছিলেন। ১৯৫৪ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজি সাহিত্যে স্নাতক (সম্মান) পরীক্ষায় প্রথম শ্রেণিতে প্রথম স্থান অধিকার করেন তিনি। পরের বছর একই বিষয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন। এর আগে অংশ নেন ভাষা আন্দোলনে। ছাত্রজীবনে সলিমুল্লাহ হল ছাত্র সংসদের ভিপি নির্বাচিত হয়েছিলেন তিনি।

১৯৫৬ সালে আবদুল মুহিত যোগ দেন পাকিস্তান সিভিল সার্ভিসে (সিএসপি)। সিএসপিতে যোগ দিয়ে তিনি ওয়াশিংটন দূতাবাসে পাকিস্তানের কূটনীতিকের দায়িত্ব নেন এবং মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে ১৯৭১ সালের জুনে পাকিস্তানের পক্ষ ত্যাগ করেন। ওই সময় তিনি বাংলাদেশ সরকারের প্রতি আনুগত্য প্রদর্শন করেন এবং যুক্তরাষ্ট্রে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে জনমত গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন।সিএসপি হওয়ার পর মুহিত তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান, কেন্দ্রীয় পাকিস্তান ও পরে বাংলাদেশ সরকারের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করেন। স্বাধীনতার পর দেশে ফিরে তিনি পরিকল্পনাসচিব হন। এর আগে পাকিস্তান পরিকল্পনা কমিশনের উপসচিব থাকাকালে পূর্ব ও পশ্চিম পাকিস্তানের মধ্যে বৈষম্যের ওপর ১৯৬৬ সালে একটি প্রতিবেদন তৈরি করেছিলেন তিনি। পাকিস্তান জাতীয় পরিষদে এটিই ছিল এ বিষয়ে প্রথম প্রতিবেদন।
বিশ্বব্যাংক ও আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ), ইসলামি উন্নয়ন ব্যাংক (আইডিবি) ও জাতিসংঘের বিভিন্ন সংস্থায় তিনি পরিচিত ব্যক্তি ছিলেন। ১৯৭২-৭৩ সালে বাংলাদেশ বিশ্বব্যাংকের সদস্য হলে সেপ্টেম্বরে মুহিত হন বিশ্বব্যাংকে বাংলাদেশের পক্ষে ভারত, বাংলাদেশ, শ্রীলঙ্কা গ্রুপের বিকল্প নির্বাহী পরিচালক।

১৯৭৭-৮১ পর্যন্ত অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সচিব ছিলেন তিনি এবং ১৯৮১ সালে স্বেচ্ছায় সরকারি চাকরি ছেড়ে দেন। ১৯৮২ সালে ২৪ মার্চ এইচ এম এরশাদ ক্ষমতা দখল করলে তাঁকে অর্থ ও পরিকল্পনামন্ত্রী করার প্রস্তাব দিলে তিনি শর্ত সাপেক্ষে রাজি হন। শর্তটি ছিল নির্দলীয় সরকার গঠন করে জনপ্রতিনিধিদের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর করতে হবে।
এরশাদ কথা না রাখলে দুই বছরের মাথায় মন্ত্রিত্ব থেকে পদত্যাগ করেন মুহিত। এরপর তিনি বিশ্বব্যাংক ও জাতিসংঘের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে বিশেষজ্ঞ হিসেবে কাজ করেন। তিনি বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলনের (বাপা) প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি। সরকার তাঁকে ২০১৬ সালে স্বাধীনতা পদকে ভূষিত করে। স্বাধীনতাযুদ্ধে অনন্য ভূমিকা রাখার স্বীকৃতি হিসেবে তা দেওয়া হয়। মুক্তিযুদ্ধ, জনপ্রশাসন, অর্থনীতি ও রাজনৈতিক বিষয়ে মুহিত বই লিখেছেন ৪০টি।
অর্থমন্ত্রী হিসেবে আবুল মাল আবদুল মুহিত এ পর্যন্ত ১২টি বাজেট উপস্থাপন করেছেন, যার ১০টি আওয়ামী লীগ সরকার আমলের।

0 comment
0 FacebookTwitterPinterestEmail

ঢাকা: বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান, সাবেক মন্ত্রী ও গাজীপুর সিটি করপোরেশনের প্রথম মেয়র অধ্যাপক এম এ মান্নান আর নেই।

বৃহস্পতিবার (২৮ এপ্রিল) বিকেল সাড়ে ৪টায় রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেন তিনি। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। তার বয়স হয়েছিল ৭২ বছর।

এর আগে বুধবার (২৭ এপ্রিল) দিবাগত রাতে হাসপাতালে ভর্তির পর তাকে লাইফ সাপোর্ট দেয়া হয়। তিনি দীর্ঘদিন ধরে নানান রোগে ভুগছিলেন।

গাজীপুর সিটি করপোরেশন মেয়র থাকাকালে ২০১৫ সালে নিজ বাসা থেকে গ্রেফতার হন এম এ মান্নান। ২০১৭ সালে আদালত থেকে জামিনে মুক্তি পান তিনি।

১৯৯১ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী হিসেবে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে তৎকালীন মন্ত্রিসভায় ধর্ম প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পান এম এ মান্নান। পরবর্তীকালে নবগঠিত বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন তিনি।

২০১৩ সালে গাজীপুর সিটি করপোরেশন প্রতিষ্ঠিত হলে বিএনপির মনোনীত প্রার্থী হিসেবে গাজীপুরের প্রথম সিটি মেয়র নির্বাচিত হন মান্নান।

0 comment
0 FacebookTwitterPinterestEmail

ঢাকা: রাজধানীর যাত্রাবাড়ী থানাধীন কোনাপাড়া এলাকার একটি বাসায় ফ্রিজের কম্প্রেসার বিস্ফোরণে গুরুতর দগ্ধ মা-বাবার পর শিশুকন্যা ফাতেমা আক্তারও (২) মারা গেছে।

আজ মঙ্গলবার সকালে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায় সে।

এ নিয়ে পরিবারের তিনজনের মৃত্যু হলো।

বৃহস্পতিবার ভোররাত সাড়ে ৩টার দিকে ফ্রিজের কম্প্রেসার বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। দগ্ধ অবস্থায় তাদের উদ্ধার করে ভোর ৫টার দিকে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়।

শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের আবাসিক সার্জন ডা. আইয়ুব হোসেন মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, যাত্রাবাড়ী কোনাপাড়া এলাকা থেকে ফ্রিজের কম্প্রেসার বিস্ফোরণ হয়ে দগ্ধ মা-বাবার পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় শিশু ফাতেমা আজ সকাল ৭টার দিকে মারা যায়। তার শরীর ৩৫ শতাংশ দগ্ধ ছিল।

গতকাল নিহত শিশুর মা ও বাবা দুই ঘণ্টার ব্যবধানে মারা যান। এ নিয়ে তিনজনই মারা গেল।

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ (পরিদর্শক) মোঃ বাচ্চু মিয়া বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, লাশ ঢামেক মর্গে রাখা হয়েছে। বিষয়টি সংশ্লিষ্ট থানাকে অবগত করা হয়েছে। নয়া দিগন্ত

0 comment
0 FacebookTwitterPinterestEmail

সিলেট ও ময়মনসিংহ ছাড়া ঢাকাসহ যেসব এলাকায় তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে তা অব্যাহত থাকতে পারে। কোথাও কোথাও আকাশ মেঘলা হলে ছিটেফোঁটা বৃষ্টিও হতে পারে। তবে এতে কমবে না ভ্যাপসা গরমের অনুভূতি। বরং আগামী কয়েকদিন এই আবহাওয়াই বিরাজ করবে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদফতর।

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল রাজশাহী ও ঈশ্বরদিতে; ৪১ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যা চলতি বছরের মধ্যে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা। এছাড়া ঢাকায় ৩৬, ময়মনসিংহ ৩৪, চট্টগ্রামে ৩৩ দশমিক ৭, সিলেটে ৩৩ দশমিক ৫, রংপুরে ৩৪ দশমিক ৮, খুলনায় ৩৯ দশমিক ৩ এবং বরিশালে ৩৪ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে।

আবহাওয়া অধিদফতর জানায়, পশ্চিমা লঘুচাপের বর্ধিতাংশ হিমালয়ের পাদদেশীয় পশ্চিমবঙ্গ এবং আশেপাশের এলাকায় অবস্থান করছে। মৌসুমের স্বাভাবিক লঘুচাপ দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করছে।

আগামী ২৪ ঘণ্টার পূর্বাভাসে বলা হয়, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের দু’এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়ার সঙ্গে বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। এছাড়া দেশের অন্যত্র অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলা আকাশসহ আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকতে পারে।

তাপপ্রবাহের বিষয়ে বলা হয়, রাজশাহী, পাবনা, যশোর এবং চুয়াডাঙ্গা অঞ্চলে তীব্র তাপপ্রবাহ, বরিশাল, পটুয়াখালী, দিনাজপুর ও রাঙামাটি অঞ্চলসহ ঢাকা বিভাগ এবং রাজশাহী ও খুলনা বিভাগের অবশিষ্টাংশের উপর দিয়ে মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে এবং তা অব্যাহত থাকতে পারে। সারাদেশে দিন এবং রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে।

আবহাওয়াবিদ শাহিনুল ইসলাম বলেন, আগামী কয়েকদিন বৃষ্টির কোনও সম্ভাবনা নেই। সিলেট ও ময়মনসিংহ বিভাগের দুএক জায়গায় বৃষ্টি হতে পারে। ফলে আগামী দুই থেকে তিনদিন এই তাপপ্রবাহ অব্যাহত থাকতে পারে।

0 comment
0 FacebookTwitterPinterestEmail

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সাথে তুরস্কের রাষ্ট্রদূত ও উপ-রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ

তুরস্কের রাষ্ট্রদূত মোস্তফা ওসমান তুরান এবং উপ-রাষ্ট্রদূত কামাল বুরাক তেমজিল বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সাথে সাক্ষাৎ করেছেন।

রোববার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে রাজধানীর গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক কার্যালয়ে সাক্ষাৎ করেন তারা।

বিষয়টি নয়া দিগন্তকে নিশ্চিত করেছেন বিএনপি চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইং কর্মকর্তা শায়রুল কবির খান।

তিনি বলেন, তুরস্কের রাষ্ট্রদূত মোস্তফা ওসমান তুরান ও উপ-রাষ্ট্রদূত কামাল বুরাক তেমজিল বেলা সাড়ে ১১টার দিকে গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক কার্যালয়ে প্রবেশ করেন। এরপর তারা বিএনপি মহাসচিবের সাথে বৈঠক করেন। বৈঠকে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী ও সাংগঠনিক সম্পাদক শামা ওবায়েদ উপস্থিত ছিলেন। নয়া দিগন্ত

0 comment
0 FacebookTwitterPinterestEmail

বাংলাদেশের সিলেট অঞ্চলের সুনামগঞ্জের শাল্লা উপজেলায় একটি হাওরের বাঁধ ভেঙ্গে হু হু করে পানি ঢুকছে। উপজেলা প্রশাসন বলছেন অধিকাংশ ধানই ইতোমধ্যে কৃষকরা তুলে ফেলতে পেরেছেন।

জেলার নদ নদী ও অন্য হাওরের পানি বৃদ্ধির মধ্যেই বাঁধটি ভেঙ্গে গেলো অথচ এ বাঁধটি এবার বোরো মৌসুমে সংস্কার করা হয়েছিলো। বাংলাদেশে বোরো মৌসুম শুরু হয় বাংলা কার্তিক ও ইংরেজি অক্টোবর নভেম্বর মাসে।

শাল্লার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আবু তালেব বলছেন উপজেলার বাহারা ইউনিয়নে বাঁধের যে অংশ নিয়ে তারা চিন্তিত ছিলেন সেখানে না ভেঙ্গে একটি ভালো অংশে ভেঙ্গে গেছে।

“গতকাল তিন ঘণ্টা ঘূর্ণিঝড় ও বজ্রপাত হয়েছে। সে সময়ে এই ঘটনা ঘটেছে। লোকজন ছিলো না, ফলে কেন ভালো জায়গাটায় ভেঙ্গে গেলো বুঝতে পারছি না,” বিবিসি বাংলাকে বলছিলেন তিনি।

তিনি বলেন বাঁধ ভাঙ্গলেও উদ্বিগ্ন হওয়ার কিছু নেই কারণ এ হাওর এলাকায় থাকা জমির ৯৫ ভাগ ধান ইতোমধ্যেই কৃষকরা তুলে ফেলেছেন।

জানা গেছে এ হাওর এলাকায় মোট ৪ হাজার ৬৩৭ একর জমিতে ধান ছিলো যার মধ্যে ৪ হাজার ৪০৫ একর জমির ধান তুলে ফেলেছে কৃষকরা।

আর কী পরিমাণ পানির নিচে আছে সেটি জানতে এখন জেলা কৃষি বিভাগ কাজ করছে বলে জানিয়েছেন জেলা কৃষি অফিসের উপপরিচালক বিমল চন্দ্র সোম।

তবে এই হাওরের বাঁধ ভাঙ্গলেও জেলার অন্য কোন হাওর এলাকার জমির ক্ষতির কোন আশঙ্কা নেই বলে জানিয়েছেন তিনি।

“আমরা বিকেল নাগাদ বুঝতে পারবো কতটা ধান এখনো পানির নীচে আছে। আর এ পানির ঢল নেত্রকোনার খালিয়াজুড়ি হয়ে কিশোরগঞ্জের দিকে চলে যাবে। এখানকার আর কোন অঞ্চল ক্ষতিগ্রস্ত হবে না,” বলছিলেন তিনি।

ফসল কাটার বার্তা ছিলো আগেই

মূলত ভারতের আসাম ও মেঘালয়ে ভারী বৃষ্টিপাত শুরু হওয়ার কারণে চলতি মাসের শুরুতেই ইঙ্গিত দেয়া হয়েছিলো যে পানির ঢল বাংলাদেশের হাওর এলাকায় আসতে শুরু করবে।

এই বার্তা পেয়ে কৃষকদের সব পাকা ফসল দ্রুত তুলে ফেলার পরামর্শ দিয়েছে কৃষি বিভাগ এবং একই সাথে আগের দফার বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত বাঁধগুলো সংস্কারের কাজ শুরু করেছিলো।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তারা তখন বলেছিলেন যে দেশে ৯৫টি হাওর আছে এবং এর মধ্যে ৪৩টি হাওরের বাঁধ মেরামতের কাজ চলছে।

এর আগে মার্চ মাসেই সিলেট ও সুনামগঞ্জসহ বেশ কিছু হাওর এলাকা তলিয়ে গিয়েছিলো বন্যার পানিতে।

হাওর এলাকার একটি অংশ।

ওই ঢলে প্রায় ৪হাজার ৩শ একর জমির ধান ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিলো। দেশে হাওর এলাকার প্রায় ২ লাখ ২৩ হাজার একর জমিতে এবার ধানের চাষ হয়েছে।

তবে নতুন করে পূর্বাভাস পেয়ে কিছু এলাকায় মানুষজন নিজ উদ্যোগে বাঁধ ঠিক করার চেষ্টা করছে এমন খবরও এসেছে গণমাধ্যমে।

এর মধ্যে বেশ কিছু বাঁধের পানির অবস্থান বিপজ্জনক অবস্থায় ছিলো এবং কোথায় কোথায় অল্প অল্প করে পানি ভেতরে প্রবেশ করছিলো।

এর মধ্যেই অনেক জায়গায় বাঁধ সংস্কারের কাজ করেছে পানি উন্নয়ন বোর্ড।

তবে শাল্লায় যেখানে বাঁধ ভেঙ্গেছে সেখানে বাঁধ ভাঙ্গতে পারে এমন ধারণাই কারও ছিলো না। বিবিসি বাংলা

0 comment
0 FacebookTwitterPinterestEmail

সালেহ্ বিপ্লব: হযরত মুহম্মদ (সা.) ওফাত নেওয়ার আগেই সাহাবীদের জানিয়ে গিয়েছিলেন তার পরিধানের জুব্বাটি পাবেন ইয়েমেননিবাসী হযরত ওয়াইস করনী (রহ.)।

হযরত ওমর (রা.) খলিফা হওয়ার পর হযরত আলীকে (রা.) নিয়ে কুফা নগরীতে যান। দরবেশ ওয়াইস করনিকে খুঁজে বের করে মহানবীর পবিত্র জামাটি তাঁর কাছে হস্তান্তর করেন।

ওয়াইস করনির বংশধররা অষ্টম শতাব্দী পর্যন্ত ইরাকে বসবাস করতেন। পরম যত্মে তারা মহানবীর জুব্বা সংরক্ষণ করেন। এক সময় করনি পরিবার ইরাক থেকে পশ্চিম তুরস্কে চলে যেতে বাধ্য হন। কুসাদাসির এজিয়ান শহরে বসতি স্থাপন করেন। ১৬১১ সাল পর্যন্ত তারা সেখানে ছিলেন। টিআরটি ওয়ার্ল্ড

১৬১১ সালে উসমানীয় সুলতান এবং খলিফা আহমেদ জানতে পারেন নবীজীর (সা.) পোশাকটির কথা। প্রথমে তিনি জুব্বাটি নিজের কাছে রাখার সিদ্ধান্ত নেন। পরে আলেমদের পরামর্শে সিদ্ধান্ত বদলান। তখন তিনি  ওয়াইস করনির বংশধরদের ইস্তাম্বুলে বসবাসের আমন্ত্রণ জানান।
সে সময় প্রতি বছর রমজান মাসে জনসাধারণকে নবীজীর (সা.) জুব্বা  দেখার সুযোগ দেওয়া হতো। দর্শকের সংখ্যা দিন দিন বাড়তে থাকায় সুলতান আব্দুল মেসিদের নির্দেশে  হিরকা-ই শরীফ মসজিদের পরিসর বাড়ানো হয়। ১৮৫১ সাল থেকে মহানবীর (সা.) জুব্বাটি সেখানে সংরক্ষিত রয়েছে।
ডেইলি সাবাহ জানায়, করোনার কারণে গত দুই বছর জুব্বা প্রদর্শন বন্ধ ছিলো। এ বছর আবারও তা চালু করা হয়েছে। প্রদর্শনী চলবে ২৯ এপ্রিল পর্যন্ত। আমাদের সময়

0 comment
0 FacebookTwitterPinterestEmail
জাতীয় সাংস্কৃতিক ফোরাম-জাসাফের উদ্যোগে ‘নববর্ষ, বাংলা সন, বাংলা ক্যালেন্ডার; উপেক্ষিত ইতিহাস ও ঐতিহ্য’ শীর্ষক সংলাপ ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার (২৩ এপ্রিল) রাজধানীর পুরানা পল্টনস্থ ফায়েনাজ টাওয়ারের মিলনায়তনে এ সংলাপ অনুষ্ঠিত হয়।
জাসাফের নির্বাহী সভাপতি ড. মোস্তাফিজুর রহমান ফয়সলের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক কাজী আরিফুর রহমানের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সংলাপে প্রাধান অতিথির বক্তব্য পেশ করেন বিশিষ্ট চিকিৎসক ডক্টরস সোসাইটির সভাপতি ডা. আবদুল্লাহ খান। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন update24.net সম্পাদক অধ্যাপক মোঃ আব্দুল জলিল।
সংলাপে অংশ গ্রহণ করেন সিনিয়র আইনজীবি এডভোকেট মোঃ মিজানুর রহমান, আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন ক্যালিগ্রাফি শিল্পী শিল্পী আরিফুর রহমান, দাবানল শিল্পী গোষ্ঠীর প্রশিক্ষক ও সাবেক প্রধান পরিচালক সুর সম্রাট মুফতি আনিস আনসারী, জাতীয় শিশু কিশোর পত্রিকা মাসিক ফুলের হাসি’র প্রধান সম্পাদক প্রকৌশলী আবদুল হাফিজ খসরু, বিশিষ্ট শ্রমিক নেতা হাজী নূর হোসেন, জাসাফের সহসভাপতি ড. আনিসুর রহমান শিপলু, জাতীয় শিশু কিশোর সংগঠন আবাবিলের সাধারণ সম্পাদক মোঃ কাউসার মিয়া, সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবি এডভোকেট শায়খুল ইসলাম, মাসিক ফুলের হাসি’র সম্পাদক বিলাল আহমদ চৌধুরী, বিশিষ্ট মুফাসসির মাওলানা আব্দুল হক আমিনী, প্রকাশক ও কবি মঈন মুরসালিন, সবার খবর সম্পাদক আব্দুল গাফফার, বিশিষ্ট সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব শেখ নজরুল ইসলাম, সংগঠক ও কবি খালেদ সানোয়ার, দাবানল শিল্পীগোষ্ঠীর মিডিয়া সম্পাদক জামিল আহমদ, অফিস সম্পাদক আশিকুল ইসলাম, বিশিষ্ট গ্রাফিকস ডিজাইনার সাইদুজ্জামান জাহিদ, কিশোর শিল্পী শাহিদুল ইসলাম সামী প্রমুখ।
0 comment
0 FacebookTwitterPinterestEmail

ওয়ালিউল্লাহ সিরাজ: জাতিসংঘের মুখপাত্র এরি কানেকে জানান, সংস্থাটির মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস আগামী মঙ্গলবার রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সাথে একটি ওয়ার্কিং মিটিং এবং মধ্যাহ্নভোজের পর প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সঙ্গে বৈঠক করবেন। সিএনএন

জাতিসংঘের একজন মুখপাত্র বলেন,  পুতিনের সঙ্গে বৈঠক করার পর বৃহস্পতিবার ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির জেলেনস্কির সঙ্গেও বৈঠক করবেন আন্তোনিও গুতেরেস।

জাতিসংঘের মহাসচিব ইউক্রেনের প্রেসিডেন্টের সঙ্গে দেখা করার পর দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী দিমিত্রো কুলেবা ও সেখানে অবস্থিত জাতিসংঘের কর্মীদের সঙ্গে মানবিক সহায়তা বাড়ানোর বিষয়ে আলোচনা করবেন। 

রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ থামাতে দুই দেশের মধ্যে সংলাপের ওপর গুরুত্ব দিয়ে আসছেন গুতেরেস। রাশিয়ার সামরিক অভিযান জাতিসংঘের সনদ লঙ্ঘন করেছে বলেও মন্তব্য করেছেন তিনি। মহাসচিবের এমন মন্তব্যের পর থেকে তার সঙ্গে কোনো ধরনের যোগাযোগ করেননি পুতিন।

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে অভিযান শুরু করে রাশিয়া। এর পর থেকে দুই পক্ষের সংঘাতে কয়েক হাজার মানুষের মৃত্যু হয়েছে। বাস্তুহারা হয়েছে ১ কোটি ২০ লাখের বেশি মানুষ। তাদের বড় একটি অংশ প্রতিবেশী দেশগুলোতে আশ্রয় নিয়েছেন। সম্পাদনা: মাজহারুল ইসলাম- আমাদের সময়।

0 comment
0 FacebookTwitterPinterestEmail

ঢাকা: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চলমান কভিড-১৯ মহামারী থেকে পুনরুদ্ধার ও পূনর্গঠন উদ্যোগ ‘বিল্ড ব্যাক বেটারের’ জন্য একটি উন্নত পানি ব্যবস্থাপনার পাশাপাশি আন্তঃসীমান্ত নদীর পানি ব্যবস্থাপনায় অববাহিকাভিত্তিক পদ্ধতি গ্রহণের প্রয়োজনীয়তার ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন।

তিনি বলেন, এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে অভিন্ন চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় সহযোগিতা করার জন্য আমাদের অবশ্যই ভালো অনুশীলন, জ্ঞান এবং প্রযুক্তির সমন্বিত শক্তির বিনিময় ঘটাতে হবে এবং আন্তঃসীমান্ত নদী ব্যবস্থাপনায় অববাহিকাভিত্তিক পদ্ধতি গ্রহণ করা প্রয়োজন।

শেখ হাসিনা জলবিদ্যুৎ উৎপাদন ও সরবরাহসহ আঞ্চলিক ও উপ-আঞ্চলিক সহযোগিতার প্রতি গুরুত্বারোপ করেন।

জাপানের কুমামোটো শহরে ‘টেকসই উন্নয়নের জন্য পানি-সর্বোত্তম ব্যবহার এবং পরবর্তী প্রজন্ম’ প্রতিপাদ্য নিয়ে অনুষ্ঠিত দুই দিনব্যাপী পানি সম্মেলনে সম্প্রচারিত এক ভিডিও বার্তায় প্রধানমন্ত্রী এই গুরুত্বারোপ করেন।

পানিকে জীবনের জন্য অত্যাবশ্যকীয় বলে বর্ণনা করে তিনি বলেন, ‘টেকসই উন্নয়ন এবং শান্তির সংস্কৃতির প্রচারের জন্য এটি মৌলিক।’ চলমান কভিড-১৯ মহামারি থেকে ‘ভালোভাবে পুনরুদ্ধারের’ জন্য আমাদের সঠিক পানি ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, এসডিজিতে পানি সম্পর্কিত বিষয়সহ পানির ব্যাপারে আন্তর্জাতিক অঙ্গীকারগুলো পূরণ করার জন্য তারা ভবিষ্যৎ প্রজন্মের কাছে ঋণী।

তিনি বলেন, ‘আমাদের যুবকদের অবশ্যই ক্ষমতায়িত করতে হবে যাতে তারা দক্ষ ও টেকসই অন্তর্ভুক্তিমূলক পানি ব্যবস্থাপনায় নেতৃত্ব দিতে পারে।’

২০১৬ সালে অনুষ্ঠিত একটি অনুষ্ঠানের কথা উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, তিনি পানি সংক্রান্ত জাতিসঙ্ঘ উচ্চ পর্যায়ের প্যানেলের সদস্য ছিলেন। তখন ‘কল টু অ্যাকসন’ পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়।
আগামী বছরে ওয়াটার অ্যাকসন দশকের মধ্য-মেয়াদি পর্যালোচনা আমাদের অ্যাকসন এজেন্ডা বাস্তবায়নে একটি প্লাটফরম প্রদান করবে। তিনি আশা প্রকাশ করেন, ‘কুমামোটো ঘোষণা সেই প্রক্রিয়ায় একটি কার্যকর অবদান রাখবে।’

এই লক্ষ্যে বাংলাদেশে গৃহীত ব্যবস্থা সম্পর্কে তিনি বলেন, তার সরকার পানি ব্যবস্থাপনার জন্য একটি অন্তর্ভুক্তিমূলক, সমগ্র সমাজের দৃষ্টিভঙ্গি তৈরি করেছে। দেশের ৮৫ শতাংশর বেশি মানুষের নিরাপদ পানীয় জল এবং উন্নত স্যানিটেশন সুবিধা রয়েছে।

সূত্র : বাসস

 

0 comment
0 FacebookTwitterPinterestEmail